পথচলাটা মোটেও সহজ ছিল না



মোহরপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০০৬ সালে মাধ্যমিক এবং পাঁচকান্দি ডিগ্রী কলেজ থেকে ২০০৮ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে মীর লোকমান ভর্তি হন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানে আরো ভালোভাবে পরিচিত হন মূকাভিনয়ের সাথে। এক বছর পর ভর্তি হন ‘প্রাচ্যের অক্সফোর্ড’ খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এসেই মজে ওঠেন মূকাভিনয় নিয়ে। তবে তার পথচলাটা মোটেও সহজ ছিল না।

২০১০ সালে যখন প্রথম ক্যাম্পাসে আসেন তখন মূকাভিনয়কে কেউ চিনতই না সেভাবে। মূকাভিনয় শেখার জন্য ধরনা দিয়েছেন নানা জনের কাছে। অবশেষে সুযোগ আসে ২০১১ সালে।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী প্রখ্যাত মূকাভিনয় শিল্পী কাজী মশরুল হুদার পক্ষকালব্যাপী একটা কর্মশালায় অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়ে যান তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের আয়োজনে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত এই কর্মশালা লোকমানের ক্যারিয়ারটাই বদলে দেয়

কর্মশালা শেষে জাতীয় নাট্যশালার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত প্রদর্শনীতে লোকমানের মূকাভিনয় সবার কাছেই প্রশংসিত হয়। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। গত ৬ বছরে তিনি বাংলাদেশে মূকাভিনয়কে একটি শিল্প হিসেবে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন।

ঢাবির লোকমান: মূকাভিনয় শিল্পের ফেরিওয়ালা!!

কিশোর লোকমানের প্রথম মূকাভিনয় মুগ্ধতা


পথচলাটা মোটেও সহজ ছিল না


‘ঢাকা ইউনিভার্সিটি মাইম অ্যাকশন’র স্বপ্নযাত্রা


পরিবার মূকাভিনয়কে কিভাবে নিয়েছিল?


মূকাভিনয়টাই স্বপ্ন, কেন?


লোকমানের প্রতিবাদের ভাষাও মূকাভিনয়!!


ক্যাম্পাস প্রতিনিধি


More news