ক্যাম্পাসে প্রোগ্রামিং সোসাইটির কাজ



ঢাকা সিটি কলেজের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ভর্তির পর মনোনিবেশ করি কম্পিউটার প্রোগ্রামিং চর্চার দিকে। টানা তিন বছর ACM ফরম্যাটের প্রবলেম সলভ করেছি। ঢাকা সিটি কলেজের হয়ে অংশগ্রহণ করেছি জাতীয় পর্যায়ের বিভিন্ন প্রোগ্রামিং কনটেস্টে।

ঢাকা সিটি কলেজে প্রোগ্রামিং সোসাইটি প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করেছি। Dhaka City College Programming Society’র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি বেশ কিছুদিন।

আমাদের কাজ ছিল জুনিয়র শিক্ষার্থীদেরকে প্রোগ্রামিং এর আশ্চর্য জগৎ সম্পর্কে জানানো ও এই বিষয়ে আগ্রহী করে তোলা। তাদের জন্য আমরা আয়োজন করে থাকি বিশেষ ক্লাস ও প্রোগ্রামিং কনটেস্ট।

২০১৬ সালে প্রথমবারের মত অংশ নিয়েছিলাম ন্যাশনাল হ্যাকাথন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির একটি টিমের সাথে। রোড ট্র্যাফিক অ্যাক্সিডেন্ট, এই ক্যাটাগরিতে আমরা ফার্স্ট রানার আপ হই।

২০১৫ সালে সরকারের লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রকল্পের ট্রেইনার হিসেবে ময়মনসিংহ ও নোয়াখালি সফর করি। ১৫ দিনব্যাপী এই ট্রেনিংগুলোতে অংশ নিয়েছিল একদম গ্রামের রুট লেভেলের স্কুল ও কলেজগামী মেয়েরা।

ঢাকা সিটি কলেজের হাসান: প্রোগ্রামিং যার কাছে মজার খেলা!!

শুরুতে ছিল ফিল্ম মেকিংয়ের ভূত!!


ক্যাম্পাসে প্রোগ্রামিং সোসাইটির কাজ


বাংলা ভাষায় প্রোগ্রামিংয়ের সবচেয়ে বড় গ্রুপ পরিচালনা


উদ্যোক্তা হিসেবে হাসানের আত্মপ্রকাশ!


জনসাধারণের জন্য ‘App of Ramadan’ তৈরি


‘Call for Blood’ এর স্বেচ্ছাসেবক হাসান


ব্যক্তিজীবনে হাসান ও তার পছন্দ


ক্যাম্পাস প্রতিনিধি


 

More news