‘স্পাইডারম্যান- আ'ম ব্যাক’ বানাতেই ফিল্মে আসা!!



সবাই কতো লক্ষ্য, স্বপ্ন, উৎসাহ নিয়ে ফিল্মে আসে। কিন্তু আমার গল্পটা পুরোই হাস্যকর। বাবা-মায়ের একমাত্র ছেলে হওয়ায় তারা সব সময় আমাকে চোখে চোখে রাখতেন। অন্যদের মতো আমার বিকেলগুলো খেলার মাঠে ক্রিকেট-ফুটবল খেলে কাটেনি। আমার বিকেল কাটতো বই কিংবা ছাদে মামার সাথে খেলাধুলা করে। স্কুল টু বাসা আর বাসা টু ছাদই ছিল আমার জীবন!!

আমি যখন ক্লাস এইটে পড়ি তখনকার কথা, বাবা-মার সাথে বসুন্ধরা সিটিতে গিয়েছিলাম শপিং করতে তখনকার সবচেয়ে বিলাসবহুল শপিংমল ছিল এটা। আমরা কেনাকাটা শেষে ফুড কোর্টে খেতে গেলাম। কিন্তু হঠাৎ আমার চোখ আটকে যায় একটা পোস্টারে। এতো সুন্দর পোস্টার আমি কখনোই দেখিনি। কী রঙিন, কী জীবন্ত!! 

পোস্টারটি ছিল স্পাইডারম্যান ৩এর। ছোটবেলা থেকেই কমিকস আর প্রচুর বই পড়তাম। স্পাইডারম্যান ১ ও ২ ভিডিও প্লেয়ারে দেখেছিলাম। কিন্তু এই জীবন্ত পোস্টার দেখে আমার মনে হলো আজ আমাকে মুভিটা দেখতেই হবে। বাবার কাছে বায়না ধরতেই বাবা রাজি হয়ে গেলেন। আমার দেখা প্রথম থ্রিডি মুভি স্পাইডারম্যান ৩

আমি মন্ত্রমুগ্ধের মতো দেখলাম। হা হয়ে দেখাযাকে বলে। কি সুন্দর গ্রাফিকস, কি চমৎকার অ্যাকশন!!  আমি শুধু হতবাক হয়েছি। সিনেপ্লেক্স থেকে বের হবার পরেও আমার চোখ জুড়ে সেই মুভির দৃশ্যগুলো ভাসছিল। বাসায় যাওয়ার পরেও আমার ঘোর কাটছিল না। বরং আরও বেড়ে গিয়েছিল হয়তোআমি স্বপ্নের মাঝে স্পাইডারম্যান এর সিকুয়েল আবিষ্কার করলাম।

হাস্যকর হলেও সত্যি আমি ফিল্মের পথে যাত্রা শুরু করি স্পাইডারম্যান- ম ব্যাক(আমার কল্পনায়!) নির্মাণের স্বপ্ন নিয়েআমার মনে হয়েছিল আমি যেটা স্বপ্নে দেখছি সেটা যদি বাস্তবে রূপ দেয়া যায় তাহলে আমার তৈরি স্পাইডারম্যানও পৃথিবী দেখবে। কিন্তু ছোট মস্তিষ্ক বুঝতে পারেনি বাস্তবতার পরিহাস!!

ঐ ঘটনার পরে আরো কয়েকবার সিনেপ্লেক্সে ছবি দেখা হয়েছিল। কিন্তু ততটা আকর্ষণ করতে পারেনি আমাকে। এর মধ্যে পাইরেটস অব দ্য ক্যারেবিয়ানযা একটু ভাল লাগার সৃষ্টি করলো তবে এমন মনে হয়নি যে আমাকে এরকম একটা মুভি বানাতেই হবে।

তবে ফিল্ম বানানোর প্রতি আমার ঝোঁক ট্রান্সফরমারদেখে আবার  বেড়ে গেল। আমি যেন চোখের সামনেই সমস্ত গ্রাফিকস, ভিএফএক্স দেখতে পাচ্ছিলাম। রাস্তা দিয়ে পার হওয়ার সময় আমি স্পষ্ট কল্পনা করতে পারছিলাম কিভাবে ট্রান্সফরমারএর মত রাস্তার গাড়িগুলোকে রোবটে ট্রান্সফার করা যায়। যদি বাবার হাত ধরে না হাঁটতাম তবে খারাপ কিছু একটা হয়ে যেত আমার সাথে! আবার সেই সুপ্ত বাসনা জেগে উঠল। আমি ফিল্ম বানাবো। আমার স্বপ্নগুলো আমার হাত ধরে বাস্তবে হাঁটবে। ভাবতেই অবাক লাগছিল তখন।

AUST’র ফারহান: একটি ফিল্মি জীবনের গল্প!!

স্পাইডারম্যান- 'ম ব্যাক’ বানাতেই ফিল্মে আসা!!



প্রথম ফিল্মি অভিযানটা কেমন ছিল?



ব্যর্থ অভিযানের পরের অনুপ্রেরণাসিনেমা পিপলস’!



‘FAR. U Motions Pictures’র যাত্রা শুরু



প্যারা বাবাফরহান!!



ফারহানের কাজের জগৎ ও অর্জন



তরুণ নির্মাতারা অস্কার আনবে!!



ক্যাম্পাস প্রতিনিধি


More news