পরিবারের বড়দের প্রতি মানবিক হোন



নীপা ফেসবুকে বেশ পপুলার তার পরিবারে বাবা, মা, ভাইবোন ছাড়াও রয়েছে দাদী সারাক্ষণ এই ফেসবুক আর সেলফির ভিড়ে দাদীর খোঁজ নেয়া হয় নাআজ দুপুরে বাসায় আর কেউ না থাকায় দাদী তার কাছে ঔষধ চায়, ফেসবুকিংয়ে ব্যস্ত নীপা দাদীকে ভুল ঔষধ দিয়ে দেয় ফলাফলে দাদী এখন হাসপাতালে

আশিকের বছরে নিয়ম করে চারদিন মেজাজ খিটখিটে থাকেকারণ এই চারদিন তার নানা নানী গ্রাম থেকে ঢাকায় আসে এটা এখন আমাদের নতুন প্রজন্মের বাস্তব চিত্র!

দাদা-দাদী, নানা-নানীর আদর ভালোবাসা পাওয়ার সৌভাগ্য সব ছেলে মেয়ের হয় না অনেকেরই দাদা-দাদী, নানা-নানী মারা যায় তাদের জন্মের আগে কিংবা এতো ছোটবেলায় যে তাদের কোন স্মৃতিই মনে থাকে না


আধুনিক নগরায়নের যুগে ভেঙ্গে যাচ্ছে যৌথ পরিবার, মুরব্বীদের সাথে তৈরি হচ্ছে নতুন প্রজন্মের দূরত্বের সম্পর্ক আবার ফেসবুক, মেসেঞ্জারের এই যুগে এক পরিবারে থেকেও এই নতুন প্রজন্ম হয়ে যাচ্ছে তাদের পূর্বের প্রজন্ম সম্পর্কে উদাসীনএই উদাসীনতা থেকে তৈরি হচ্ছে মূল্যবোধের অবক্ষয়

তবে একটু সচেতন হলে আর একটু সময় হলেই তাদের সাথেও গড়ে তোলা যায় সুন্দর একটা সম্পর্ক

আপনাকে সবসময় খোঁজ খবর রাখতে হবে তাদের শরীর স্বাস্থ্যেরবৃদ্ধ মানুষ মানেই নিয়ম করে কিছু ঔষধ তিনবেলা নিয়ম করে তাদের ঔষধটা হাতে তুলে দিন, পানির গ্লাসটা এগিয়ে দিন দেখবেন অদ্ভুত সুন্দর একটা মায়ার বন্ধন তৈরি হবে আপনার পূর্বপ্রজন্মের সাথে

গল্প করার জন্য, একাকিত্ব কাটানোর জন্যই তো সারাদিন ফেসবুকিং করেন, তাই না??

অনেক সুন্দর সুন্দর জীবনের গল্প জমা আছে আপনার পরিবারের এই বড় সদস্যদের কাছেএকদিন শুনেই দেখুন, আপনি নিজেই আবার দ্বিতীয়দিন সময় বের করে শুনতে ছুটে আসবেন জীবনের অনেকটা পথ, ঝড় ঝাপটা পার করে এসেছে তারাতাদের অভিজ্ঞতার গল্প দেখবেন আপনার আগামীর জীবনে আশার আলো দিবে

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে আপনার এই আগের প্রজন্মটা সরাসরি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের গল্প জানেন, জানেন পাকিস্তান-ভারত ভাগ, এমনকি কেউ কেউ বৃটিশ পিরিয়ডের গল্প যেটা আপনি আর কিছুদিন পর চাইলেও পাবেন না

একটা বয়সের পর মানুষ আবার শিশু হয়ে যায়এই মানুষগুলা হয়তো আপনাকে একই প্রশ্ন বারবার করতে পারে, কিছু অযাচিত জিনিস জানতে চাইতে পারেদয়া করে কখনোই তাদেরকে মনের ভুলেও ধমক দিবেন না, এতে তাদের পরিণত মনে আঘাতটা অনেক বেশি করে গিয়ে লাগবে

আপনার দাদা-দাদী, নানা-নানী যদি গ্রাম থেকে আসে, এটা যেন আপনার কাছে দুঃসংবাদ না হয় আপনার রুমটাই হয়ত শেয়ার করতে হবে, খুব বড় কথা না এটা আপনার ছোটবেলায় তারা কত আপনাকে বিছানায় রেখে মাটিতে মাদুর বিছিয়ে শুয়েছে!


আনন্দেই শুয়েছে, নাতি-নাতনিকে ভাল যায়গা দিতে পেরে তাদেরকে আজ অবহেলা করবেন! কয়েকটা দিনই তো মাত্র, একটু হাসিমুখে মানিয়ে নিলেই দেখবেন আপনার আগামী ভবিষ্যৎ তাদের দোয়ায় অনেকটা হাস্যোজ্জ্বল হয়ে যাবে

আপনার দূরের বন্ধুর যেমন করে খবর নিয়ে থাকেন, দাদা-দাদী, নানা-নানী দূরে থাকলে সপ্তাহে নাহলেও অন্তত মাসে একদিন ফোন করে তাদের খোঁজ খবর নিনদেখবেন আপনার বাবা মা আপনার এই আচরণে অনেক বেশি আনন্দ পাচ্ছেন

বিকেলবেলা ছাদে যাওয়ার সুযোগ হলে পরিবারের এই বড় সদস্যকে নিয়ে যেতে পারেন, মন্দ লাগবে না কিন্তু

মাসে অন্তত একদিন তাদের নিয়ে বাহিরে কোনো পার্কে গিয়ে ঘুরে আসুন যদি তারা চলতে সক্ষম হন টিভিতে তাদের সাথে বসে তাদের প্রিয় অনুষ্ঠানটা দেখুন যদি তারা টিভি দেখে থাকেন

সবশেষে একবার ভাবুন আপনার বাবা মা একদিন বৃদ্ধ হবেন, আপনি আপনার সন্তানের কাছ থেকে তাদের জন্য কেমন ব্যবহার চান?? আপনি নিজেও তো এক সময় বৃদ্ধ হবেন,তাই না??

প্রিয় মানুষ অবহেলা করলে আমাদের কেমন কষ্ট লাগে? ঠিক তেমনি আপনার এই অবহেলা বয়সের ভারে নুয়ে পড়া এই মানুষগুলোকে কম কষ্ট দেয় না

মানবিক হোন সবার প্রতি, এটাই তো মানুষ নামের স্বার্থকতাতাইনা???

বিশেষ প্রতিনিধি

More news