"বইমেলায় যাবার আগে নিজেকে গুছিয়ে নিন"



ভাষার মাস, বইমেলার মাস। বইপ্রেমীরা সারাবছর মুখিয়ে থাকে এই মাসের অপেক্ষায়। বইমেলায় প্রচণ্ড ভিড় আর উত্তেজনার বশে বেশিরভাগ সময়ই দেখা যায় যে পছন্দের এবং প্রয়োজনীয় বইগুলো কেনার কথা মনে থাকে না। তবে কিছু পদক্ষেপ অনুসরণ করলে এই সমস্যা কিছুটা লাঘব হতে পারে।

·        হাতে সময় কম থাকলে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেখে কিংবা কারো কাছে প্রশংসা শুনে কোনো বই পছন্দ করতে পারেন। আর নামটা যদি মোবাইল নোটে সেভ করে আপনার মেলায় যাবার দিনের বিকালের রিমাইন্ডার দিয়ে রাখেন তাহলে কিন্তু মিস হবার চান্স নেই।

·        মেলায় প্রায় সব স্টলেই ক্যাটালগ দেয়া হয়। কোনো বন্ধু আগে মেলায় গেলে তাকে দিয়ে ক্যাটালগ আনিয়ে রাখতে পারেন। এতে বাসায় বসে ঠাণ্ডা মাথায় ইচ্ছামত পছন্দ করতে   পারবেন। তাতে পরে শান্তিমত কেনাকাটা করার সুযোগ তৈরি হবে।

·        বইয়ের চয়েজ ভালো কিংবা বইয়ের বাজারে সারাদিন ঘুরতেও অসুবিধা নেই এমন কাউকে সাথে নিলে আপনার সুবিধাই বেশি হবে। চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে আকৃষ্ট না হয়ে বইয়ের লেখার মান দেখুন। সেক্ষেত্রে বইয়ের ফ্ল্যাপ পড়া অবশ্যই জরুরী।

·        সিঙ্গেল কাব্যগ্রন্থ কিংবা উপন্যাস হুট করেই না কিনে ফেলে খোঁজ নিয়ে দেখুন ঐ লেখকের কোনো  সমগ্র বর্তমান আছে কিনা মেলায়। এতে অর্থ সাশ্রয়ের সাথে সাথে আপনার সংগ্রহও বেশ সমৃদ্ধ হবে।

·        আপনার হাতে একের অধিক দিন মেলায় যাবার সুযোগ থাকলে কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, নতুন লেখক, পুরাতন লেখক, লিটলম্যাগের জন্য আলাদা আলাদা দিন ভাগ করে নিন। দেখবেন উত্তেজনা আর চাপ দুটাকেই দমিয়ে বেশ ভালো বই শিকার হয়ে গেছে আপনার।

·        কিছু বই সারা বছর জুড়ে পাওয়া যায়। আর কিছু বই মেলার নির্ধারিত ২৫% এর বেশি ছাড় দেয়। সেসব বই মেলা থেকে না নেয়াই মনে হয় বুদ্ধিমানের কাজ। স্টলের বিক্রেতাদের মিষ্টি কথায় ভুলবেন না। নিজের বুদ্ধি বিবেচনা আর রুচিবোধের উপর ভরসা রাখুন।

·        একবারে তাড়াহুড়ো করে একসাথে সব বই না কেনাই ভাল। একটু ঘুরে, চা-কফি খেতে পারেন। দেখবেন বেশ এনার্জি পাচ্ছেন। বই কেনার ক্ষেত্রে সবসময় উৎসব আর ছুটির দিন বর্জন করুন। কারণ এসময় মেলায় প্রচণ্ড ভিড় থাকে এবং অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটে থাকে।

·        কথায় আছে ‘বই কিনে কেউ কোনদিন দেউলিয়া হয়না’। তবে বই কেনার জন্য টাকা আলাদা করে রাখাাই বুদ্ধিমানের কাজ। এক্ষেত্রে বইমেলার জন্য আগে থেকেই বেশ কিছু টাকা জমানো যেতে পারে।

·        উপহার হিসেবে বই সর্বশ্রেষ্ঠ, এই কথা আমরা কে না জানি! পরিবার,বন্ধু আর প্রিয় মানুষদের এই মাসে বই উপহার দিয়ে একটা সারপ্রাইজ দিতে পারেন। তাছাড়া কাছের মানুষদের একটা লিস্ট করে রাখুন। প্রত্যেকের জন্য পছন্দানুযায়ী বই কিনে ফেলুন। তারপর তাদের জন্মদিনে একে একে গিফট করুন।

সর্বশেষে মেলা প্রাঙ্গণে অতিরিক্ত ফেসবুক চেকইন এবং সেলফি পরিহার করুন। এতে করে আপনি এবং দর্শনার্থী সবাই মিলেই সুন্দর একটা পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারবেন মেলায়। আশা করি এমন সুন্দর পরিবেশে আপনার সারা বছর সুন্দর সুন্দর সময়ের জন্য কিছু সুন্দর সুন্দর বই পেয়ে যাবেন।

বিশেষ প্রতিনিধি, ছবি: ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত


More news