ক্ল্যাশ অব ক্ল্যানে ভালো করার কৌশল



ক্ল্যাশ অব ক্ল্যান বর্তমান সময়ের খুবই জনপ্রিয় অনলাইন বা রিয়েল টাইম মাল্টিপ্লেয়ার গেম। গুগল প্লে স্টোরের ডাউনলোড হিসেব অনুযায়ী ইতিমধ্যেই এটির ডাউনলোডের পরিমাণ ১০০ মিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে। জেনার অনুযায়ী এটি স্ট্র্যাটেজি গেম। হিউম্যান ভার্সেস হিউম্যান হওয়ায় গেমটিতে মানুষের আগ্রহ বেশি। নির্দিষ্ট কোন বয়সসীমা না থাকলেও তরুণ-যুবকদের মধ্যেই গেমটির জনপ্রিয়তা ও আসক্তি অনেক গেমটিতে নিজেকে একটি ভিলেজ বানাতে হয় যার কেন্দ্র হল টাউনহল। নিজের টাউনহল ও রিসোর্স রক্ষা করা। আর অপরের টাউনহল ধ্বংস করা রিসোর্স লুট করাই খেলার মূল বিষয়। আজ ক্ল্যাশ অব ক্ল্যানে ভালো করার কিছু কৌশল জানাবযা মূলত অপেক্ষাকৃত কম অভিজ্ঞতা সম্পন্ন খেলোয়ার যেমন টাউনহল ১-৬ পর্যন্তদের কাজে লাগবে বলে আশা করছিনিচে ধারাবাহিকভাবে এগুলো তুলে ধরা হলো:

১। ভিলেজ/বেইজ লেয়াউট পরিকল্পনা: নিজের বেইজকে সাজানোর জন্য নানা ধরনের জিনিস টাউনহলের লেভেল অনুযায়ী ক্ল্যাশ অব ক্ল্যান স্টোরে পাওয়া যায়। এদের মধ্যে রয়েছে ডিফেন্সের জন্য Canon, Archer Tower, Wizard Tower, Mortar সহ আরো অনেক কিছু। এছাড়া সৈন্য বানানোর জন্য ব্যারাক,সৈন্য আপগ্রেডের জন্য ল্যাবেরেটরি, রিসোর্স কালেক্টর ইত্যাদি। বেইজ সাজানোর সময় টাউনহলকে একদম মাঝে রাখতে হবে। তার চার পাশে Mortar Air Defense রাখাটা ভালো। Mortar বড় রেঞ্জে স্প্ল্যাশ ড্যামেজ ঘটায়ফলে ডিফেন্স ওয়াল ভাঙার জন্য এর সামনে জড়ো হওয়া সৈন্যদের লাইফ ড্যামেজে এটি খুবই কার্যকর। Air Defense আকাশ পথে আসা সৈন্য যেমন Healer, Dragon এদের লাইফ দ্রুত ড্যামেজ করতে পারে। ফার্মিং এর জন্য রিসোর্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য Gold Storage, Elixir Storage, Dark Elixir Storage গুলোকে টাউনহলের কাছে ওয়াল দিয়ে রাখতে হবে যাতে এগুলো কেউ সহজে লুট করতে না পারে। স্টোরেজের সুরক্ষা জন্য এর সাথে Wizard Tower রাখাটাই উত্তম। কারণ এটি সর্ট রেঞ্জে অধিক ড্যামেজ ঘটায়। ওয়াল পদাতিক সৈন্য যেমন: বারবারিয়ান, গবলিন, আরচার, জায়ান্ট, উইজার্ড এদের গতিকে ধীর করে দেয় তাই ওয়াল নির্মাণে চতুর হতে হবে যত পারা যায় ডাইভার্শন গড়তে হবে। কখনোই আর্টিলারিকে উন্মুক্ত যায়গায় রাখা যাবে নাতাহলে প্রতিপক্ষের সৈন্যরা খুব সহজেই আপনার ডিফেন্সকে ধ্বংস করে দেবে। যতবেশি পারা যায় ওয়াল আপগ্রেড করতে হবে নিচে কিছু ভালো ওয়াল লে-আউটের ছবি সংযুক্ত করা হলোঃ-

রিসোর্স কালেক্টর, ব্যারাক, ল্যাবেরেটরি ও অন্যান্য স্থাপনাগুলোকে বেজের মূল নকশার বাইরে চারদিকে ঘুরিয়ে রাখা ভালোতাহলে তাদের ধ্বংস করতে প্রতিপক্ষের সৈন্যদের বেশি সময় লাগবেএবং বেজের ওয়াল দিয়ে ঘেরা মূল অংশের ভেতরে থাকা আর্টিলারি (মর্টার, ক্যানন, আরচার টাওয়ার) তাদের ড্যামেজ ঘটাতে  পারবে। ট্র্যাপ, বোম ও জায়ান্ট বোমা, বেলুন বোমা স্থাপন করতে হবে রিসোর্স ও আর্টিলারির কাছাকাছি। উপরের টিপসগুলো মাথায় রেখে নিজের বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে ভালো বেইজ তৈরি সম্ভব। ভালো কিছু বেইজ লেয়াউটের ছবি নিচে দেওয়া হলোঃ

২। ওয়ার বেইজ পরিকল্পনাঃ ক্ল্যান ওয়ারে অংশ নিতে এবং ভালো করতে একে যথা সম্ভব বুদ্ধিমত্তার সাথে সাজাতে হবে। এবং মাথায় রাখতে হবে ক্ল্যান ওয়ারে সবচেয়ে জরুরী বিষয় হলো প্রতিদন্দ্বী যাতে থ্রি স্টার না পায়। এজন্য টাউনহলকে রক্ষা করা সবচেয়ে জরুরী। অন্তত টাউনহলকে রক্ষা করতে পারার অর্থ হলো ওয়ান স্টার সেভ করতে পারা যা ক্ল্যান ওয়ারের হিসাব পালটে দিতে পারে। ওয়ার বেইজে রিসোর্সের কোনো মূল্য নেই। টাউনহলকে কেন্দ্র করে ডিফেন্স ম্যাকানিজমের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে বিশেষ করে Mortar, Air Defense, Air Sweeper, Hidden Tesla এগুলোকে টাউনহলকে ঘিরে স্থাপন করতে হবেট্র্যাপ, বোমা ইত্যাদিকে ডিফেন্স ম্যাকানিজমের কাছে অথবা টাউনহলকে কেন্দ্র করে বসানো উচিতনিচে কিছু ভালো ওয়ারবেইজের ছবি দেওয়া হলোঃ-

শীল্ডের ব্যবহার: ক্ল্যাশ অব ক্ল্যানে ফার্মিং একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এর জন্য প্রয়োজন হয় সময় ও রিসোর্সের। কিন্তু বেইজ বারবার আক্রমণের সম্মুখীন হলে রিসোর্স ধরে রাখা যায় না এবং আপগ্রেড হতে থাকা ডিফেন্স আর্টিলারি কোনো কাজে আসে না। প্রতিবার আক্রান্ত হবার পর বেইজের কমপক্ষে ৩০ ভাগ বা তার বেশি হলে ধ্বংস হলে প্রায় ১২-১৬ ঘন্টার শিল্ড পাওয়া যায়। ভিলেজে শিল্ড কার্যকর থাকার অর্থ হলো এসময় কেউ ভিলেজে আক্রমন করতে পারবে না। তবে এই সময় অন্য কোন খেলোয়ারের উপর আক্রমন করলে শিল্ড নষ্ট হয়ে যায় ফলে নিজে আক্রান্ত হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়ে যায়। তাই ফার্মিংয়ের জন্য উচিত প্রাপ্ত শিল্ডের পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার। যাতে এই সময় রিসোর্সও জমানো যায় আবার নির্বিঘ্নে আপগ্রেডও চালানো যায়।

বেইজ সংক্রান্ত আরো ধারণা নেওয়ার জন্য ইউটিউবে ভিডিও দেখতে পারেন এছাড়াও নিজের ক্ল্যান মেম্বারদের বেইজ ঘুরেও ধারণা নিতে পারেন।

বিশেষ প্রতিনিধি, ছবি: ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত।

More news