প্রতিদিন পরিমাণমত পানি গ্রহণ করছেন তো?



খাবার না খেয়ে হয়ত আপনি কয়েকদিন বাঁচবেন। কিন্তু পানি ছাড়া কতদিন বাঁচবেন? ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় মহাত্মা গান্ধী ২১ দিন পর্যন্ত অনশনে ছিলেন। তিনি কোন খাবার গ্রহণ করেননি কিন্ত পানি গ্রহণ করেছিলেন। কেননা, পানি ছাড়া মানুষ সর্বোচ্চ ৩-৫ দিন বেঁচে থাকতে পারেবুঝতেই পারছেন, মানব শরীরে পানির গুরুত্ব কতটুকু!

একজন প্রাপ্ত বয়স্ক লোকের শরীরের ৬০ শতাংশ পানি। আমাদের শরীরের প্রত্যেকটি কোষের সঠিকভাবে কাজ করতে পানির প্রয়োজন হয়। দেহের প্রত্যেকটি জয়েন্টে জয়েন্টে পানি লুব্রিকেন্ট (পিচ্ছিল কারক পদার্থ) হিসেবে কাজ করে। এতে জয়েন্ট ভালভাবে কাজ করতে পারে তাছাড়া, পানি দেহের তাপমাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে। ঘামের মাধ্যমে দেহ থেকে বর্জ্য পদার্থ বের করে দিতেও সাহায্য করে এই পানি। এক কথায়, মানব শরীরে পানি অপরিহার্য।

দেহে পানির প্রয়োজন পূরণ না হলে দেখা দেয় নানা রকম সমস্যা। আমাদের শরীর প্রতিনিয়ত পানি হারায়। ঘামের মাধ্যমে, শ্বসনের মাধ্যমে এমনকি গোসলের সময়েও শরীর থেকে পানি নির্গত হয়। প্রচণ্ড গরমে একজন প্রাপ্ত বয়স্ক লোকের শরীর থেকে প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ১ থেকে ১.৫ লিটার ঘাম বের হয়।

জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির জীববিজ্ঞানের প্রফেসর রান্ডাল কে প্যাকার ২০০২ সালে “How long can the average person survive without water?” article এ প্রকাশ করেন-“যদি দেহের অপরিসারিত পানির চাহিদা পূরণ না করা হয়, তবে শরীরের তরল পদার্থের পরিমাণ দ্রুত কমে যেতে পারে। সবচেয়ে ভয়ানক খবর হল, এর কারণে শরীরের মোট রক্তের পরিমাণও কমে যেতে পারে। আর রক্তের পরিমাণ যখন কমে গেলে হঠাৎ করেই কমে যেতে পারে ব্লাড প্রেসার। যা মৃত্যু পর্যন্ত ঘটাতে পারে। অন্যদিকে পানির পরিমাণ কম হলে ঘামও কম ঝরবে। তাতে শরীরের তাপমাত্রাও বেড়ে যাবে অনেকাংশে।

ইউনিভার্সিটি অব রচেস্টার মেডিকেল সেন্টারের তথ্যমতে-“দেহ থেকে অতিরিক্ত পানি বের হয়ে যাওয়ায় ডিহাইড্রেশনের ফলে দেহের মোট ওজনের ১০ শতাংশ কমে যেতে পারে। এবং এই ঘাটতি যদি দ্রুত পূরণ না করা হয়, তাহলে ঘটতে পারে মৃত্যু।“  

তাই সুস্থ থাকতে শরীরে পানির চাহিদা পূরণ করা অত্যন্ত জরুরী। ক্যালফোর্নিয়ার মেডিসিনের ডাক্তার ডঃ পামেলার মতে, “একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের দিনে প্রায় ৩ লিটার পানি পান করা উচিৎঅন্যদিকে, একজন প্রাপ্তবয়স্ক মহিলার উচিত দিনে প্রায় ২.৫ লিটার পানি গ্রহন করা। তিনি আরও বলেন, আপনার প্রতিদিনের কাজের উপর ভিত্তি করে দেহে পানির চাহিদা আরও বাড়তে পারে। আর ঐ চাহিদা অনুযায়ীই পানি গ্রহণ করা জরুরী।    

সরাসরি পানি খেতে না চাইলে, রসালো ফলমূল ও তরল পানীয় খেয়েও শরীরে পানির চাহিদা পূরণ করা যেতে পারে। এ্যালকহল পানীয় হলেও, তা কিন্তু গ্রহণ করা যাবে না। কেননা, এ্যালকহল গ্রহণের ফলে অতিরিক্ত ইউরিনেশনের মাধ্যমে দেহ থেকে প্রয়োজনীয় পানি বের হয়ে যায়। তাই পানীয় গ্রহণেও চাই সতর্কতা।

গরমে পানির চাহিদা একটু বেশি থাকে। তাই অনেকে মনে করেন শুধু গরমেই বেশি পানি খেতে হয়। এটা ঠিক নয় আমাদের উচিত গরম শীতের ভেদাভেদ না করে সব সময় প্রয়োজনীয় পানি পান করা

ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডটকো ডট ইউকে এবং লাইফহ্যাকার ডটকম অবলম্বনে    


More news