নারী, নিজের প্রতি যত্নশীল হোন



গত বিশ বছরে হার্টের অসুখে পুরুষদের মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমাগত কমেছে। কিন্তু হার্টের অসুখে বেড়েছে মেয়েদের মৃত্যুর হার! হ্যাঁ, সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখানো হয়েছে প্রতিদিনের নানা রকম স্ট্রেস নারীদের হার্টে অতি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়াচ্ছে।

পরিবার পরিচালনায় বা কাজের ক্ষেত্রে কিংবা নিজস্ব জগতে প্রতিনিয়ত নানা রকম বৈরি অবস্থার মুখোমুখি হতে হয় নারীদের। এগুলোর সমষ্টিই দিনের পর দিন বাড়িয়ে তুলছে মানসিক চাপ। যার ফলশ্রুতিতে ঝুঁকি বাড়ছে হার্টের অসুখের। এমনকি মৃত্যু!

অন্য অরেকটি গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, ৩৮% পুরুষ শুধুমাত্র হার্টের অসুখে মৃত্যু বরণ করছেযেখানে নারীদের মৃত্যুর সংখ্যা এর থেকে প্রায় দশ ভাগ বেশিপ্রায় ৪৭%! 

ধূমপান, রক্তে অধিক কোলেস্টেরল, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, পেটে চর্বি জমা এবং শারীরিক পরিশ্রম না করা হার্টের অসুখের অন্যতম কারণযদিও সব নারীরা যে ধূমপান করে তা নয়, কিন্তু বাকী সমস্যাগুলো বেশিরভাগ নারীর মাঝেই বিদ্যমান। তাছাড়া, নারীদের কিছু বিশেষ শারীরিক জটিলতা এমনকি হরমোনের সমস্যা হার্টের অসুখের ঝুঁকি বাড়ায়।

সম্প্রতি ডায়াবেটিস তো ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে! শুধুমাত্র ডায়াবেটিসের কারণেই পুরুষদের তুলনায় নারীদের হার্টের অসুখের ঝুঁকি তথা মৃত্যুর হার বাড়ছে দিন দিন। অস্ট্রিয়ার মেডিকেল ইউনিভার্সিটির প্রোফেসর Alexandra Kautzky-Willer বলেছেন “সম্প্রতি কার্ডিওভাসকুলার রোগে বিভিন্ন বয়সের নারীদের সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়ে চলেছে। তাছাড়া, হার্টের অসুখে নারীদের বিশেষ শারীরিক জটিলতার ডায়াগনোসিসে বেশ সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। মেডিকেল সায়েন্সে এই ক্ষেত্রে আরও উন্নতি করা দরকার।”  

তাই এর প্রতিকার হিসেবে গবেষণায় উল্লেখ করা হয়, প্রতিদিনের কাজের মাঝে কিছুটা সময় বিরতি দেয়া। স্ট্রেস দূর করতে অবশ্যই শারীরিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম করা। সর্বোপরি নিজের জন্য একটু সময় বের করে পছন্দের বই পড়া বা গান শুনা।

তাই, নারী আপনাকে বলছি, সুস্থ থাকতে সচেতন এবং যত্নশীল হোন নিজের প্রতি।

এনডিটিভি ডটকম অবলম্বনে

More news