অদ্ভুতুড়ে নববর্ষ উদযাপন



গেল বছর যা হবার হলো! আসছে বছর ভাল হোক”! নতুন বছরকে উদযাপন করার মূল সুর এটাই। যুগে যুগে এভাবেই ট্র্যাডিশনগুলো চলে আসছে।

আমরা বাঙালিরা যেহেতু “বার মাসে তেরো পার্বণ” এর জাতিআমরা নববর্ষকে উদযাপন করি জাঁকজমকভাবে। কিন্তু বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই নববর্ষ পালন করা হয় অদ্ভুতভাবে। সেরকমই কিছু গল্প শুনব আজ!

আসছে নববর্ষের রেশ না হয় এখন থেকেই শুরু হলো!


বালিশের নিচে থাকলে ভাল বর


আইরিশ কন্যারা মনে করে নতুন বছরে বালিশের নিচে থাকলে ভাল বর পাবার আশা থাকে। আইরিশ কালচার অনুযায়ী, নতুন বছরে বালিশের নিচে অবস্থান করলে দুর্ভাগ্যরাও চলে যায়! তাই অবিবাহিত কন্যা ছাড়াও বালিশের নিচে বসে থাকে ছেলেবুড়ো সবাই!


প্লেট ভেঙে নববর্ষ


ডেনমার্কবাসীর পুরনো বছরের যত প্লেট আছে সব জমা করে। তারপর নতুন বছর ঘরে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় প্লেট ভাঙা। মাটিতে ফেলে প্লেট ভাঙলে তবুও ভালো ছিল! তারা প্লেট ভাঙে বন্ধু এবং প্রতিবেশীর দরজায় ছুড়ে ছুড়ে!


১২ আঙুরে সৌভাগ্য


স্পেনের নতুন বছরের প্রথম মধ্যরাত কিন্তু খুবই মজার! ১২টা আঙুর মুখে পুরতে হয় সেদিন সবাইকে। যারা মুখে ১২টা আঙুর একসঙ্গে একবারে নিতে পারবে, নতুন বছরে তারাই হবে ভাগ্যবান।


রঙ্গিন অন্তর্বাস


বোঝো ঠ্যালা! নতুন বছরে তুমি যদি ভাল ভাগ্য চাও তুমি পরবে হলুদ আন্ডারওয়্যার! ভালবাসা চাইলে লাল আর সম্পদ চাইলে সোনালি। মেক্সিকো এবং সাও পাওলো শহরে দারুণ ভাবে উদযাপন করা হয় এই উৎসব। দক্ষিণ আমেরিকার কিছু দেশেও এমনটা দেখা যায়।


আইস্ক্রিম মাটিতে ফেলে


সুইজারল্যান্ডের মানুষজন মাটিতে আইস্ক্রিম ফেলে নতুন বছর উদযাপন করে।  


কেকের ভিতর পয়সা

বলিভিয়াতে বছরের প্রথম দিনেই কেক বানানো হয়। ভিন্ন এই কেক বানানোর সময় একটা পয়সা মিশ্রণ করা থাকে ময়দার সঙ্গে। কেক বানানো শেষ হলে যে ব্যক্তি ঐ পয়সা পায়, ভাবা হয় সেই ব্যক্তিই হবে নতুন বছরের সৌভাগ্যবান ব্যক্তি।


মৃতের সঙ্গে রাতযাপন


চিলিদের নববর্ষের রাতটা শুরু হয় কবরের পাশে। প্রিয় সেই জন, যে আজ নেই পৃথিবীতে তার কবরের পাশে বসে রাত কাটায় লোকে! এভাবেই শুরু হয় তাদের নতুন বছর।


সাতবার খাওয়া


এস্তোনিয়াবাসীরা (Estonia) নতুন বছরের প্রথম দিনে সাতবার খায়। তারা বিশ্বাস করে এই সাতবার খাওয়া তাদেরকে নতুন বছরে অর্থে বিত্তে ভরপুর রাখবে।


সুটকেস নিয়ে ঘোরা


কলম্বিয়াবাসীরা নতুন বছর পালন করে সুটকেস নিয়ে। সারাদিন যেখানে যায়, সেখানেই সুটকেস নিয়ে যায়। তারা বিশ্বাস করে, এতে তাদের নতুন বছরের ভ্রমণ জীবন শুভ হবে।


কুশপুত্তলিকা পোড়ানো


পানামার নতুন বছর শুরু হয় কুশপুত্তলিকা পুড়ানো দিয়ে। এই কুশপুত্তলিকা কিন্তু কোন খারাপ বা দুর্জন ব্যক্তির হয় না। বরং বিখ্যাত এবং পরিচিতদের কুশপুত্তলিকা পোড়ানোর মাধ্যমেই তারা উদযাপন করে নববর্ষ!

অদ্ভুত সব উদযাপন! কিন্তু এটাই তাদের ট্র্যাডিশন! যেমন আমরা সারা বছর পান্তা ভাত আর ইলিশ না খেলেও, একটা দিন ঠিকই সানকি ভরে পান্তা খাই! এটাও তো অদ্ভুতুড়ে, তাই না?

লিস্ট টোয়েন্টি ফাইভ ডটকম এবং ওয়ান টু থ্রি নিউইয়ার ডটকম অবলম্বনে


More news